Tag Archives: আমার ডায়েরী

জীবনের পাতা থেকে – ৩

“ডায়েরীর পাতা থেকে” সিরিজের নাম চেঞ্জ করে দিলাম। ডায়েরীর পাতা থেকে আবার কি জিনিস ! আমি কি ডায়েরী দেখে দেখে টাইপ করি নাকি। এবার নামটা বেশ যুতসই। : )

রমজান শুরু হলো ১০ দিন শেষ, একদিন ও ক্লাস করতে যেতে পারি নাই। কারন রাতে ঘুমাইলে (ঘুম আসলে না ঘুমাবো) সেহরী মিস। আর সেহরী মিস মানে তো সব শেষ। সেকারনে সেহরী খেয়ে ঘুমাই আর তারপর ১০ ঘন্টা টানা ঘুম। উঠে দেখি হয় ২ টা বাজে অথবা ৩ টা অথবা ৪টা। : (

আজ বাথরুমে দারুন একটা রিয়ালাইজ হলো, ; )

কেউ যদি নতুন কিছু শিখতে চায় তাহলে এমন কাউকে খুজে যে পারে এবং তাকে শিখায় দেয়, এতে অবশ্য একটা উপকার আছে সেটা হলো বেসিক কারো কাছ থেকে দেখে এবং হাতে কলমে শিখতে পারলে প্রথমে কনফিডেন্স লেভেল খুব ভালো থাকে। কিন্তু যে আপনাকে বেসিক শিখালো সে আপনাকে (৯৫ ভাগ ক্ষেত্রেই যা ঘটে) কখনোই ঐ বিষয়ের সব কিছু আপনাকে নিজে শিখাতে পারবে না/ শিখাবে না। বাকিটুকু তখন আপনাকে নিজেই শিখতে হবে। তখন আপনি যদি নিজে নিজে আগাতে না পারেন তখন জিনিস টা আপনার কাছে খুব বিরক্তিকর হয়ে উঠবে এবং এটা আপনি আদৌ করতে/শিখতে পারবেন কি পারবেন না সেটা দারুন লো কনফিডেন্সে ভোগবেন।

আর যদি কিছু শিখার নিজেই উঠে পরে লাগেন অন্য কারো সাহায্য না নিয়ে তাহলে কি ঘটে? আপনি নেটে প্রচুর সার্চ করলেন/ প্রচুর বই ঘাটলেন, উকি / রেফারেন্স ঘেটে একাকার করে দিলেন। কিন্তু খুব তাড়াতাড়ি বুঝতে পারবেন না হয়তো ঠিক কোনটা আপনার পড়া উচিত / কোনটা পড়লে আপনি যা জানতে চাচ্ছেন ঠিক সেটাই জানতে পারবেন। তাই আপনি ঢালাও ভাবে অনেক কিছু পড়ে যাবেন এবং সঠিক কিছু না পেলে বেশ লো কনফিডেন্সে ভোগবেন। কিন্তু আপনার যদি আগ্রহ থাকে আপনি কিন্তু পড়াশোনা থামিয়ে দেবেন না সেব্যাপারে আমার সন্দেহ নেই। কেননা , আমি নিজে কখনো এমনবস্থায় পিছু হটি না। যা হোক, তো পরে কি হবে? আপনি অনেক কিছু পড়ে আস্তে আস্তে হয়তো আপনার কাঙ্খিত জিনিসটি পাবেন এবং শিখতে পারবেন এবং বেসিক টা জানার পর গ্রাজুয়েলি এডভান্সে আগাতে থাকবেন। কারন ভুল এবং সঠিক পথ এর বেশ কিছু জায়গা আপনি অলরেডি চেনেন। যত সামনে আগাতে থাকবেন তত আপনার কনফিডেন্স গ্রো করতে থাকবেন কখনোই সেটা কমবে না যদি কোনকিছুতে বিফল হন তাও কারন প্রথমবার বিফল হয়েও আপনি সামনে এগিয়ে গেছিলেন। এবং আপনি পুনরায় সেটা করবেন !

তাই, আমি সবসময় ই বলি সেলফ লার্নিং ইজ দ্যা বেস্ট লার্নিং ..

বেশি বকবক করে ফেললাম। আমি খুবই দুঃখিত। : (
আজ একটি দারুন বই শেয়ার করবো। বইটির নাম Getting Real. পাবেন এখানে। The smarter, faster, easier way to build a successful web application। কেমন লাগলো পড়ে জানাবেন। ডেভলপারদের জন্য বইটি পড়া মনে হয় বাধ্যতামূলক। : P

ভালো থাকবেন সবাই। আর দোয়া করবেন যাতে ক্লাস করতে পারি। : P

ডায়েরীর পাতা থেকে – ১

অনেকদিন পর সকাল বেলা বের হলাম। ঝিড়ঝিড়ে বৃষ্টিতে হাটাহাটি করলাম। এইবারের আষাঢ় যেন সত্যিকারের আষাঢ় মাস। ১ তারিখ থেকে নিয়মিত বৃষ্টি হচ্ছে। আমি ও নিয়মিত ভিজেই চলেছি। অনেক দিন আগের বলা কিছু কথা আবার ও মনে পরে গেল।

সারারাত বিভিন্ন খাবারের ছবি দেখে অনেক খিদা লাগছিল। সকাল বেলা ভূনা খিচুড়ি খাওয়া আমার আবার অনেকদিনের শখ। কিন্তু ৩/৪ টা রেস্টুরেন্ট খুজেও তা পেলাম না। অবশেষে মনের দুঃখে পরোটা আর ডাল ই খেলাম। কিন্তু একেবারেই খেতে পারলাম না। পরে জেদ চেপে গেল যে আজ খিচুড়ি খাবো ই। ভাগ্য এইবার নেক্সট হোটেলটিতেই আমার জন্য খিচুড়ি মিলাই দিল। তবে পরোটা খাওয়ার কারনে খুব বেশি আয়েশ করে খেতে পারিনি।

গতকাল মীমের সাথে দেখা করে আসলাম। মেয়েটা খুব করে ধরছিল দেখা করতে হবে। আমার আবার কেউ দেখা  (মেয়ে) করতে বললে দৌড়ে পালাতে ইচ্ছা করে। ঘুম থেকে উঠে ঘন্টা খানেক গল্প করে আসলাম। আর একজন তো হাতে একবাটি নুডুলস ধরাই দিল। বাসায় এসে মামা আর (আমার রুমমেট) সবাই মিলে খেলাম।

আব্বু অসুস্থ বেশ কয়েকদিন ধরে। বয়স হওয়া সত্তে ও এখন ও হাড়ভাঙ্গা খাটুনি খাটে। কিছু বললেও শুনে না। কি যে করি !! কিছুদিন পর সব দায়িত্ত নিজেকে নিতে হবে। বাবাকে আর কত !!!