HELPING SMALL BUSINESS
SUCCEED
It doesn't take a genius to start and build a successful business
LET ME SHOW YOU HOW
Out of Line

Protected: আমার বন্ধুরা – ১

This content is password protected. To view it please enter your password below:

Read More
Programming

What is the Perfect way to start coding?

Someone asked me, if any person wants to start coding, what is the right process? I tell them –

I started programming with this book – teach yourself C – harbert schildt. Its really important in the long run to have solid idea about the language, and how you can mold it for your use. Like in some problem if I use while loop instead of for, the whole thing gets a lot easier.

Once someone gets a good grip on the language, he should try to solve some easy problems. And the best site to solve easy problems is obviously UVa. You can find the list of easy problems in here – http://shygypsy.com/acm/cgi-bin/grepplus.pl?keywords=easy . There are some more other sites. I put their address in here – http://smilitude.googlepages.com/ in the programming section.

Once someone is done with solving easy problems, he should feel confident about his knowledge about programming and get the taste of problem solving.

After that, the scenario changes a lot. Now you have to learn new things, new algorithms, basic things that everyone should know. CLRS is a good book for that, but its quite tough, I want to write a book later on, but I don’t think I can write it in a few years. I am not yet enough experienced actually.

This is a good place to start – http://www.topcoder.com/tc?module=Static&d1=tutorials&d2=alg_index . It covers most of the important algorithms.

And I’d suggest them to attend online contests (specially topcoder), and not to fear failure. I was a straight failure in my first one year of programming. And the more you get experienced you should start using google and online forums to learn new things, connect with smarter people. Like I use topcoder forum a lot, whenever I need to find a reference.

And more importantly, find what’s you are passionate about. If it’s not programming that you are passionate about then don’t go for it. Go for something else, find a girlfriend or buy a guitar! But before doing something else, try a little to see if programming fits you.

I really waste a lot of my times, looking for what other programmers are doing. Like peeking into Petr’s blog, some other programmers blog, and their interviews in online whenever I get. Actually that inspires me a lot. And in the long run inspiration is really important.

 

From smilitude

Read More
WordPress

WP কে WPMU তে রুপান্তর করুন

নিচের ভিডিওটির প্রথম দশ মিনিটে কিভাবে WPMU তে নেটওয়ার্ক তৈরী করবেন এবং অন্যান্য কনফিগারেশন সমূহ সম্পন্ন করবেন তার বিস্তারিত বলা আছে। 🙂

 

Read More
Freelancing

আয়ের পথ হিসেবে "Article Writing"

Article-writing-typing

অনেক দিন পর লেখতে বসলাম। আজ ননটেকিদের জন্য নতুনভাবে একটি পুরাতন বিষয় নিয়ে হাজির হলাম।

যারা টেকনিক্যাল বিষয় নিয়ে পড়াশোনা করে না তাদের জন্য আজ আর্টিকেল রাইটিং নিয়ে কিছু কথা বলবো। আপনি ওয়েব ডিজাইন/প্রোগ্রামিং/ গ্রাফিক্স এর কাজ জানেন না। এগুলা শিখা ও অনেক সময় এর ব্যাপার। আর এফোর্ট এর ব্যাপার। আপনি যদি আপনার Track থেকে তার পাশাপাশি কম প্রচেষ্টা/সময় দিয়ে কিছু করতে চান তাহলে আর্টিকেল রাইটিং আপনার জন্য একটি পারফেক্ট পার্টটাইম জব হতে পারে যদি ইংরেজি জ্ঞান মোটামুটি ভালো থাকে। তারপর চর্চা করে করে জ্ঞানটাকে যত সমৃদ্ধ করতে পারেন তত ভালো।

সবচেয়ে ভাল উপায় হয় যদি আপনি কিওয়ার্ড রিসার্চ নিয়ে পড়াশোনা করে একটি / দুটি ভালো কিওয়ার্ড নিয়ে মানসম্পন্ন একটি ইংরেজি ব্লগ চালু করতে পারেন। এখানে নিয়মিত লেখার মাধ্যেমে আপনার বেশ ভালো চর্চা হবে পাশাপাশি একটি নির্দিষ্ট সময় পর আপনি গুগুল এডসেন্স/ এফিলিয়েট ইউজ করে ব্লগ থাকে ভাল মানের আয় করতে পারেন ইচ্ছা করলেই। এসইও নিয়ে কিছু পড়াশোনা করতে পারেন। তাতে ব্লগের যেমন এসইও নিজে নিজেই করতে পারবেন পাশাপাশি ফ্রিল্যান্স রাইটিং এর আর্টিকেল গুলো ও অপ্টিমাইজ করতে পারবেন। এতে একঢিলে দুপাখি মারা হবে।

ভালো একটি ব্লগ শুধু আপনাকে এডসেন্স/ এফিলিয়েট হতে আয় করতেই সহযোগিতা করবে না আপনাকে অনেক অনেক ভালো ভালো কাজ ও পাইয়ে দিবে। এক্ষেত্রে আপনি যেমন ওডেস্ক / ফ্রিল্যান্সার এ ফ্রিল্যান্স রাইটার এর কাজ করতে পারবেন তেমনি ব্লগ থেকে ও রাইটিং এর কাজ পেলে সেটাও করতে পারবেন আর এডসেন্স / এফিলিয়েশন তো আছে ই।

শুরু করতে যা লাগবেঃ 

১, প্রথমে পড়াশোনা করুন/ পরিচিত কারো সাহায্য নিন আর্টিকেল রাইটিং এবং এসইও এর ব্যাপারে। 

২, একটি/দুটি কিওয়ার্ড সিলেক্ট করুন। 

৩, একটি .com ডোমেইন এবং একটি মিনিমাম মানের হোস্টিং প্লান নিয়ে ব্লগিং শুরু করুন। 

৪, নিয়মিত লেখুন এবং ভালো মানের লেখা দিয়ে শুরু করুন। 

৫, ওডেস্ক এ একটি একাউন্ট করে প্রোফাইল টা সুন্দর ভাবে সজ্জিত করুন এবং ৪/৫ টা টেস্ট দিন। 

৬, নিয়মিত বিড করুন কাজ পাবেন। আর কয়েকটা কমপ্লিট হয়ে গেলে আপনি নিয়মিত কাজ পাবেন। 

৭, ৩/৪ মাস ব্লগিং করার পর এডসেন্স এ এপ্লাই করতে পারেন একাউন্ট এর জন্য/ এমাজন এফিলিয়েট অথবা অন্য এফিলিয়েট একাউন্ট করতে পারেন এবং ব্যবহার ও করতে পারেন। 

আমি খুব সহজ ভাবেই বলে দিলাম কিন্তু করার সময় একটু কঠিন লাগবেই। চেষ্টা করলে খুব দ্রুত ই সব কিছু সম্ভব করে তোলা যায়। 

প্রফেশনাল রাইটার এর সাথে কনসালটেন্সি / এসইও বিষয়ক সহযোগিতা / ব্লগ সেটাপ/ ডোমেইন/ হোস্টিং/ ওডেস্ক বিষয় সহযোগিতা যে কোন ব্যাপারে সহযোগিতার জন্য মেইলে যোগাযোগ / মন্তব্য করতে পারেন। সবাইকে ধন্যবাদ।

Read More
Freelancing

Why you should hire me for On Page SEO?

Search Engine Optimization this three words are the most top keyword in present online marketplace. There are so many consultant in oDesk/ Freelancer and other market places. I just astonished to see that a link builder tried to show him/her as a SEO consultant… !!

I want to describe something about SEO. This is not a thing of a week or a month. For some on page optimization it will may 1 month task but i want to tell you that this is a long process. We consultants have to do many things for good eyes @Google/Yahoo/Bing. Two months ago i worked as SEO manager of Skin Tricks. They tried to get rank @Google. They wanted to give me high payment for this things. I just told that, you can give me 10K but Google is believe in its algorithm. I told No one can give you rank in one week and at last they understand me.

Read More
WordPress

“Mehedi’s Social Share” My First WordPress Plugin

Hello Buddies, just release my first WordPress plugin based on Social Website share. In this 1.0 version “Mehedi’s Social Share” has only two options. This are Facebook share and twitter Share. I will update this with more social options @version-2.0.

Don’t Need to do anything. Just Active it and go any of your posts. You can see the Twitter and Facebook Share button. From any posts anyone can share and twite.

To install, simple extract the ‘mehedis_social_share’ folder into your ‘wp-content/plugins/’ directory. Once extracted, you must activate the plugin within the WordPress Site Admin ‘Plugins’ section.

Mehedi's Social Share

 

 

 


Read More
WordPress

A History of Full Width Template || কিভাবে বানাতে হয় ?

আজ কিছু শিখাবো না , আসেন গল্প করি।;)

আমি আর কি গল্প করবো বলেন , আছি এক WP নিয়া, ওটার ই একটা গপ্প বলি, ওয়ার্ডপ্রেস ঘাটতে ঘাটতে অনেকদিন থেকেই মনে প্রশ্ন জাগে নতুন পেজ বানানুর সময় ডান পাশ থেকে যে সিলেক্ট করে দেই এটা Archive পেজ, এটা Contact Page, এটা Full Width পেজ, আসলে এগুলা আসে কই থেইক্ক্যা। সময় পাইতেছিলাম না গবেষনা করার, পরে একদিন বসে মামার গোপন জিনিস উদ্ধার কইরাআল্লাম।

<? নীতিবাক্য 

/* ওয়ার্ডপ্রেস শিখার জন্য উত্তম হলো একটি বেসিক ২০/৩০ কেবির থীম ইন্সটল করে কাস্টমাইজ করা। অনেক কিছু জানা যায় তাহলে। */

?>

তা গোপন জিনিস কি উদ্ধার করলাম সেইটা নিয়া চলবে আজকের কাহিনী, প্রথমেই ভাবলাম ,একটা ফুল উইডথ পেজ বানাইলেই তো সব ঝামেলা শেষ। যেই কথা সেই কাজ লেগে গেলাম সাথে সাথে –

page.php ফাইল এবং full-width-page.php এই দুটি ফাইলের মধ্যে ডিফারেন্স কি ? ডিফারেন্স হলো, page.php তে সাইডবার থাকে , full-width-page.php তে সাইডবার থাকে না। তারমানে সাইডবার টা উঠায়দিলেই ফুল উইডথ পেজ হয়ে গেল ?

আচ্ছা আসেন দেখি, হয়ে গেল কি গেল না চেক করি, প্রথমে সি-প্যানেলে লগিন করেন, তারপর ফাইল ম্যানেজার , তারপর থিম এ যান, সেখান থেকে page.php ফাইলটা ডাউনলোড করেন। তারপর রিনেম করে full-width.php অথবা আপনার পছন্দের নাম লিখে আপলোড করেন।

ফাইল এর এডিট মুডে যান , তারপর নিচের কোডটি লিখেন প্রথমে,

<?php
/*
Template Name: Full Width
*/
?>

তারপর, <?php get_sidebar(); ?> কোডটি খুজে করুন, এবং মুছে দিন।

এবং <div id=”container”> খুজে বের করে <div id=”container” class=”fullwidth”> করে দিন।

style.css ফাইলে যেয়ে নিচের কোডটুকু এড করে দিন।

#container.fullwidth  {
margin: 40px auto;
width: 940px;
margin-top:40px;
}

আর যদি <div id=”container”> না থাকে তাহলে নিজেই লেখে নিন।

সি এস এস ফাইলে ডিফল্ট কোড লেখা আছে। margin, width, margin-top এসব কমিয়ে বাড়িয়ে ঠিক করে নিন। দরকার না হলে মুছে দিন। ২ নং স্ক্রীনশটে দেখুন আমি শুধু width দিয়েছি, কারন আমার আর কিছু দরকার নাই। কাজ মোটমুটি শেষ। এবার ড্যাশবোর্ডে Add new Page এ ক্লিক করে ডানপাশে দেখুন ডিফল্ট টেমপ্লেট এর সাথে Full Width ও যোগ হয়ে গেছে। Full Width সিলেক্ট করে পেজ পাবলিশ দেন। দেখবেন পেজটি  Full Width হয়ে গেছে।

বিঃদ্রঃ এসব ছোট খাট বিষয় নিয়ে লেখার উদ্দেশ্যে একটাই। ওয়ার্ডপ্রেস এর খুটিনাটি জানা। আপনি যদি WP শিখতে চান একটি সিম্পল ফ্রি থীম নিয়ে ব্লগ/সাইট বানান। তারপর কাস্টমাইজ করুন দেখবেন কতো কিছু লাগে ওটা কাস্টমাইজ করতে। কষ্ট হবে, তবে অনেক কিছু শিখা হবে জানা হবে।

ধন্যবাদ। গপ্প শেষ। 😉

Read More
WordPress

এক্সক্লুসিভঃ ওয়ার্ডপ্রেস ব্যাকআপের সব সমস্যার সমাধান

backup1

হেই , সবাই কেমন আছেন ? আজ হাজির হলাম একটি এক্সক্লুসিভ জিনিস নিয়ে। আমি ওয়ার্ডপ্রেস সাইটের ব্যাকআপ নিয়ে মোটামোটি বিরক্ত গত ১ বছর ধরে। ব্যাকআপ এর জন্য যখন প্রথম প্রথম প্লাগিন ঘাটতাম তখন দেখতাম বেশির ভাগই ডাটাবেস ব্যাকআপ ছাড়া আর কিছু নাই। আরে ভাই, ডাটাবেস ব্যাকআপ তো আমি সিপ্যানেল থেকেই নিতে পারি। তোমার প্লাগিন এর দরকার কি তাইলে? সেজন্য সবসময় ম্যানুয়াল ব্যাকআপ নিতাম।বেশ ঝামেলা লাগতো , আলাদা করে ডাটাবেস ব্যাকআপ নিতাম এরপর ফাইলগুলোও হার্ডডিস্কে সেভ করে রাখতাম। এই গেল পূর্ব কথা, এখন আসি বর্তমানে –

কিছুদিন আগে আমার বন্ধুর কাছে একটি অসাম প্লাগিন এর খোজ পেলাম। তার কথা মতো আমি এটার নাকি সেই ফ্যান হয়ে যাব। যা হোক, ওর কথার অত পাত্তা না দিয়া এক দেড় মাস প্লাগিনটা ফালাইয়া ই রাখছি। এর কিছুদিন পর একদিন ব্যাকআপ নিবো তখন প্লাগিনটার কথা মনে হলো। দিলাম ইন্সটল। তারপর Backup & Restore অপশনে ক্লিকাইলাম।

তারপর প্লাগিন ভাইরে কইলাম, আমারে ফুল ব্যাকআপ দেন। ৩০ সেকেন্ড পর দিল। আমিও ডাউনলোড কইরা নিশ্চিন্তে একটা ঘুম দিলাম। 🙂

ঘুম থেইক্ক্যা উইঠা মন চাইলো প্লাগিন এর লগে ইট্টু গল্প করন যাক। 😉 , ভাইরে কইলাম ভাই ফুল ব্যাক তো দিলেন আমারে, তা কি কি ব্যাকআপ নিচেন আসলে ?

প্লাগিনঃ যা কইচি তা ই নিচি। চিন্তা কইরা দেহ, ফুল কইতে কি কি বুজায়।

আমি কইলাম ফুল কইতে মেলা কিছু বুজায়। যেমনঃ ডাটাবেস ব্যাকআপ, ফাইলস ব্যাকআপ, ওয়ার্ডপ্রেস ব্যাকআপ।

প্লাগিনঃ আমি ও তো ফুল কইতে এগুলাই বুঝি। 🙂

আমার খুশি আর রাখে কে তখন। ওয়ার্ডপ্রেস, ডাটাবেস এবং wp-content সব ব্যাকআপ ভাইয়ে নিয়া নিছে এক কথায় (এক ক্লিকে)।

যাই হোক, ব্যাকআপ নেয়া তো শেষ কবেই। এইবার আসি Restore এর ঝামেলায়। ঘাম ছুইট্টা গেছে আমার এই কামডা করতে। 😀

আসেন আপনাদের ও ঘাম ছুটাই। উপরের ছবিতে ফুল ব্যাকআপ এর পাশে যেখানে Restore/Migrate লেখা আছে সেখানে ক্লিক করুন। এবং importbuddy.php নামে ফাইল টা ডাউনলোড করুন। তারপর সার্ভারে public_html এ মানে ফাইল ম্যানেজারে যেয়ে এই ফাইলটা আপলোড করুন এবং ব্যাকআপ এর .zip ফাইলটা আপলোড করুন।

কি করলাম আমরা ? জাস্ট ২ টা ফাইল আপলোড করলাম। এখন সাইটের URL টাইপ করুন ব্রাউজারে। এবং শেষে / দিয়ে importbuddy.php লিখুন। এবং এন্টার চাপুন। যেমনঃ http://yoursite.com/importbuddy.php। এখন কিছু ইনফরমেশন দিতে হবে আপনাকে এবং সাবমিট করতে হবে। একে একে বলি শুনেন,

১. প্লাগিন এর সেটিং এ যেয়ে Import password (optional) এ একটি পাসওয়ার্ড দিন। সেভ করুন।

২. ব্রাউজারে http://yoursite.com/importbuddy.php এ এসে নেক্সট স্টেপ এ ক্লিক করুন।

৩. Restore to same server সিলেক্ট করুন যদি সেম সার্ভারে ই রিস্টোর করতে চান। আর অন্য সার্ভারে করতে চাইলে Migrate to new server সিলেক্ট করুন। তারপর নেক্সট চাপুন।

৪. নেক্সট স্টেপ এ ক্লিক করুন।

৫. এখানে ব্লগ URL , ডাটাবেস ইউজার নেম, ডাটাবেস পাসওয়ার্ড এসব দিন।

ব্যস হয়ে গেল, সবচেয়ে ভালো হয়, নিচের ছোট্ট ভিডিও টা ডাউনলোড করে দেখলে।

বেশি না লেখে শর্টকাট মেরে দিলাম। 😉 মাইন্ড খাইয়েন না।

আর, যার যার প্লাগিনটা লাগবে আমাকে মেসেজ করুন এখানে । কোন সমস্যায় পড়লে মন্ত্যব্যে জানান।

২০০ ডলারের প্রিমিয়াম প্লাগিন তাই ডাউনলোড লিঙ্ক দিলে একটু সমস্যা। বুজেনই তো। কবে আবার মামলা খাইয়্যা যাই। 😀

ও হ্যা, প্লাগিনটার নাম টা বলি নাই। Backup Buddy.

সব শেষে সকলকে ধন্যবাদ।

হ্যাপি ওয়ার্ডপ্রেসিং ….

Read More
1 3 4 5 6 7