Author Archives: Mh Mehedi

ওয়েব হোস্টিং ব্যবসা এবং বাংলাদেশ

যেকোন ব্যবসা করার আগে অন্তত ৩-৪ মাস খুব ভালো ভাবে লাভ-লস স্টেটমেন্ট, রিস্ক, প্রফিট মার্জিন, ROI, ব্রেক ইভেন পয়েন্ট, মার্কেট কম্পিটিশন এসব আনুমানিক হিসাব করেই বিজনেস করার উচিত।

আর হোস্টিং বিজনেসে এসবের পাশাপাশি প্যাকেজ তৈরী করা, তার দাম কি ধরনের হবে, সার্ভার খরচ এর সাথে মিল রেখে কিভাবে প্যাকেজ তৈরী করলে কত সময়ে লাভের মুখ দেখবে। কিভাবে মার্কেটিং করবে। এসইও / অনলাইন এডস এ কেমন খরচ করতে হবে। এসব ই ভেবে চিন্তে ঠিক করেই মাঠে নামা উচিত।

ওয়েব হোস্টিং ব্যবসা শুরু করতে মিনিমাম যা যা লাগবেঃ

– একটা ডোমেইন নেম
– একটা সার্ভার (রিসেলার/ ভিপিএস/ডেডিকেটেড)
– ট্রেড লাইসেন্স
– বিলিং ম্যানেজার
– টেকনিক্যাল জ্ঞান (সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ)
– ডোমেইন রিসেলার
– একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ওয়েবসাইট

কখনো এমন করবেন না, মাঠে নেমে আজকে ৫০০ টাকা প্যাকেজ তারপর সেল হয় না দেখে তারপর ৩০০ টাকা প্যাকেজ। ২ দিন পর পর ৮০% ডিসকাউন্ট দিবে। এভাবে কি ব্যবসা হয় ভাই?

নাকি ২/৩ হাজার টাকা দিয়ে রিসেলার নিয়েই হোস্টিং ব্যবসা করা যায় তাই এই ব্যবসার কোন বেল নাই? ২০০০ টাকার ব্যবসা তাই এতো রিসার্চ করে কি হবে এটা ভেবে ব্যবসা শুরু করলেন তো ভুল করলেন। এরচেয়ে ২/৩ হাজার টাকার পান নিয়ে রাস্তায় বসে পরুন। আমি গ্যারান্টি দিলাম মাসে ৮-১০ হাজার টাকা লাভ করতে পারবেন।

এভাবে ব্যবসা হয় না, আর যা কিছুই হোক না কেনো।

শিরোনামহীন লেখা

আগে করতাম ফ্রিল্যান্সিং আর এখন উদ্যোক্তা। এসব না করে চাকরি বাকরি করতাম ৮-১০ হাজার টাকা বেতনের তাও একটু দাম পাইতাম আত্নীয় স্বজনের কাছে। যেহেতু আমি ৯টা/৫টা অফিসে যাই না, যেহেতু আমি সারাদিন/রাত পিসির সামনে পরে থাকি তার মানে আমার অনেক টাইম।

আমার মিটিং থাকা অপরাধ। আমার জরুরি কাজ থাকা অপরাধ। সারাদিন-রাত তো থাকি পিসিতে, কাজ করে আবার আমি টায়ার্ড হই নাকি। পিসি মানে তো মজা আর মজা। তাই না?

ফ্রিল্যান্স কাজ করে প্রাইভেট ভার্সিটিতে নিজের খরচ নিজে মেইনটেইন করা খুব সহজ ব্যাপার ছিলো না। তবুও খুব ভালো ভাবেই সেই সময় টা পার করেছি। রাতে কাজ দিনে ক্লাস এই দুটোই এমন ভাবে করা লাগছে যে এছাড়া আর কিছুতে সময় দিতে পারি নাই। না ফ্যামিলিকে/প্রিয়জনকে।

আজ আমি যখন একজন উদ্যোক্তা, দিনে-রাতে সবসময় তো ক্লাইন্ট সাপোর্ট দিচ্ছি ই এছাড়া আজ এই ইভেন্ট কাল ওই ইভেন্ট, এখানে মিটিং ওখানে এই সেই তো আছেই আবার রাতে করছি নিজের কাজ / ফ্রিল্যান্স কাজ / টুকটাক লেখালেখি / হিসাব নিকাশ সহ খুচরা অনেক কিছু যা বলে শেষ করা যাবে না। এবার ও আগের মতোই না সময় দিতে পারি ফ্যামিলিকে না অন্য কাউকে।

ফ্যামিলির সাথে থাকি না ৫ বছর। কেউ ই আমার কর্মজীবন নিজের চোখে দেখে নাই। এসব টেকি কাজ কর্ম তারা এতো বুঝে ও না। মাঝে মধ্যে ইচ্ছে করে তাদের একটু বুঝাতে। মাঝে মাঝে বুঝানুর চেষ্টা করে হাপিয়ে উঠি। মাঝে মধ্যে চিন্তা করি দূর কারো বোঝার দরকার নাই আমাকে, আমি তো জানি কি করছি। এই হলো অবস্থা।

জীবনের সবকিছুর হিসাব নিকাশ আমি খুব সুন্দর ভাবে করি। আমি খুবই উচ্চাকাংখী। আমি জানি কিছু পেতে গেলে কিছু হারাতে হয়। আজ পরিশ্রম করে যেমন আমি সাফল্য পাচ্ছি তেমনি যখন পরিশ্রম করছি তখন ফ্যামিলিকে সময় না দেয়ার কারনে আজ সবাই মনঃক্ষুন। তখন যদি আমি সময় দিতাম তাহলে আজ সবাই আমার উপর খুশি থাকতো। কিন্তু আমার এই সাফল্য আসতো না।

একটা নির্দিষ্ট সময় পর আমি সবই করবো। ফ্যামিলির দায়-দায়িত্ব হোক আর কাউকে সময় দেয়া হোক আর যা ই হোক। কিন্তু আমি যখন পূরোদমে দৌড়াচ্ছি তখন আমি থেমে সময় দেই কিভাবে? এখন এক মুহুর্ত সময় ও আমার জন্য অনেক দামি সেটা আমি বুঝি কিন্তু আর কেউ বুঝে না। আমি কাউকে বুঝাতেও পারি না। যে যা বলে সবই মেনে নেয়া ছাড়া আর কোন উপায় নেই।

যেহেতু আমি সমাজের আর দু/চারটা কাজের মতো কোন কাজ করি না তাই কোন ভুল হয়ে গেলে অথবা না পারলে কেউ ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখে না। তখন ভাবি এতো কিছু কি আমি আমার জন্য করতেছি শুধু? তারা কি এর অংশ নয়? আমি যখন আমার লক্ষ্যে পৌঁছবো তখন আমি কি বলবো? আমার ফ্যামিলির উৎসাহে এত দূর এসেছি? জানি না কি বলবো আমি তখন। হয়তো এটাই বলবো।

ই-কমার্স হোস্টিং সম্পর্কে বিস্তারিত জানুন

ই-কমার্স সাইটের জন্য ভালো হোস্টিং ও সার্ভার বেশ গুরুত্বপূর্ণ। কম দামের শেয়ার্ড হোস্টিং গুলোতো বেশ লোভনীয় একটি শব্দ থাকে, তা হলো “UNLIMITED”। কিন্ত এই UNLIMITED এর আসলে LIMITATION এর শেষ নাই। যখন কোন সাইট পপুলার হয় ও প্রতিদিন অনেক ভিজিটর আসে অথবা প্রোডাক্ট অনেক বেড়ে যায়, তখন limitation গুলো একে একে ধরা পরে। যদিও শুরুতে শেয়ার্ড হোস্টিং ই সবার প্রথম চয়েজ থাকে, এর সাশ্রয়ী দামের জন্য। কিন্ত আলটিমেটলি এক সময় ভালো সব সাইটকে অবশ্যই VPS বা Dedicated এ শিফট হতে হয়। ই-কমার্স সংক্রান্ত হোস্টিং এর নানা ধরনের প্রশ্ন এবং উত্তর নিচে দেয়া হলো।
১. প্রতিদিন ১০,০০০ ভিজিটর হ্যান্ডেল করার জন্য কি শেয়ার্ড হোস্টিং যথেষ্ঠ নাকি VPS লাগবে?
উত্তরঃ ১০ হাজার ভিজিটর মানে প্রতি ঘন্টায় ৪১৬ জন ভিজিটর। সো খুব বেশি না। শেয়ার্ড হোস্টিংয়েই চলবে। তবে আমার ব্যক্তিগত মত হচ্ছে শেয়ার্ড হোস্টিংয়ে ই-কমার্স সাইট হোস্ট না করা। তার কারণ শেয়ার্ড হোস্টিং অন্য ইউজারের কারণে আপনি ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারেন। সেটা সিকিউরিটি/পারফর্মেন্স দুটো দিক থেকেই।

২. যদি VPS লাগে তাহলে নুন্যতাম কত CPU, RAM ও SSD হলে ভালো হয়? কারো প্র্যাকটিকাল অভিজ্ঞতা থাকলে দয়া করে শেয়ার করেন। কারণ আমি এ ব্যপারে নানান জনের নানান মত পেয়েছি।

উত্তরঃ ভিপিএস নিলে Xen/KVM নেয়া ভাল। আর ১জিবি র‌্যাম হলে হবে। আর সব কোম্পানিই সিপিউ ডেডিকেড দেয় না, সিপিউ শেয়ার্ড। SATA HDD হলে যেন RAID-10 হয়, আর SSD হলে মিনিমাম RAID-1

৩. দেশী হোস্টিং বনাম বিদেশী হোস্টিং, কোনটা কার জন্য ভালো?

উত্তরঃ দেশি-বিদেশি কোন ফ্যাক্টর না, হোস্টিং কেনার আগে কে কেমন সার্ভিস প্রদান করছে সে সম্পর্কে খোজ নিয়ে দেখতে হবে। টপটেন হোস্টিং এড়িয়ে চলতে হবে।

৪. পাচ ডলার শেয়ার্ড হোস্টিং সাইট সর্বোচ্চ কত জন ভিজিটর প্রতিদিন হ্যান্ডেল করতে পারে?

উত্তরঃ টাকা এখানে ফ্যাক্টর না। কোম্পানি’র সাথে কথা বলে জেনে নিতে হবে লিমিট।

৫. VPS সার্ভার Setup & configuration, Performance & security optimization, Maintenance & schedule check up করার জন্য ঢাকায় কি কোন ভালো প্রতিষ্ঠান আছে?

উত্তরঃ Dhrubo Host বাংলাদেশে ভালো মানের হোস্টিং, ভিপিএস, অনলাইন সিকিউরিটি সার্ভিস দিয়ে থাকে।

৬. সার্ভারের ব্যাপারে কোন প্রতিষ্ঠান কি paid consultancy দেয়?

উত্তরঃ Dhrubo Host পেইড কনসালটেন্সি দিয়ে থাকে।

৭. E-commerce CMS হিসাবে Magento is the best. কিন্ত Magento smoothly run করার জন্য বেশ ভালো সার্ভার লাগে বিশেষ করে ভিজিটর বেশী হলে। পক্ষান্তরে Opencart বেশ user friendly ও fast. তো opencart use করার কি কোন বড় সিমাবদ্ধতা আছে?

উত্তরঃ না, তেমন কোন সীমাবদ্ধতা নাই। যা প্রয়োজন হবে ডেভেলপ করিয়ে নিতে পারেন।

৮. Managed hosting use করা ভালো নাকি, নিজেরা Set up করে নেয়া ভালো? কারণ Managed hosting এর খরচ অনেক বেশী।

উত্তরঃ নিজে না জানলে, ম্যানেজড নেয়াই উত্তম।

৯. কাউকে দিয়ে কোন সার্ভার সেটআপ করার পর কোন সমস্যা হলে বা কোন কিছু conflict করলে, সেটা ঠিক করার জন্য কি আলাদা পে করতে হয়? Server maintenance এর চার্জ কিসের উপর নির্ভর করে?

উত্তরঃ সেটাপের পর সমস্যা হলে আবার হায়ার করতে হবে।

১০. CDN এর খরচ কেমন? কোন CDN সাশ্রয়ী ও ভালো?

উত্তরঃ MaxCDN বেস্ট।

১১. গড়ে একটা বাংলাদেশের একটা ই-কমার্স ওয়েব সাইটে মাসে ৫ লক্ষ ভিজিটর আসেলে তার প্রতি মাসে কি পরিমান CDN bandwidth লাগতে পারে?
উত্তরঃ এটা বলা আসলে মুশকিল। অনেক কিছুর উপর ডিপেন্ড করবে ব্যান্ডউইথের খরচ।

১২. Load blanching অপশন এর জন্য আপনার সাজেশন কি?

উত্তরঃ লোড ব্যালেন্সিং এর দরকার পড়লে সফটওয়্যার লোড ব্যালেন্সিং ব্যবহার করা যেতে পারে। হার্ডওয়্যার বেজড লোড ব্যালেন্সিংয়ের দাম অনেক বেশি।

১৩. অপনারা SSD অফার করেন?

উত্তরঃ SSD শেয়ার্ড হোস্টিংয়ে দিতে পারব, তবে ভিপিএসে না।ভিপিএস SAS RAID-10 হবে।

১৪. আপনারা LAMP আর LEMP কোন stalk সাজেশন করেন? এখনতো Nginx অনেকেরই প্রথম পছন্দ এর performance এর কারণে।

উত্তরঃ এটা আসলে এ্যাপসের উপরে ও নির্ভর করে। সিংগেল সাইটে আমি LEMP দিয়ে থাকি।

১৫.নির্দিষ্ট CMS এর জন্য APC, Varnish Cache, Memcache এগুলো Setup & configuration করেন?

উত্তরঃ জ্বি করে থাকি।

১৬. cPanel ছাড়া অন্য কোন opensource control panel install করেন? করলে কোনটি?

উত্তরঃ Webuzo প্যানেলটি অনেককেই ইন্সটল করে দিয়েছি।

১৭. একটা VPS দুইটা ভিন্ন CMS (wordpress & opencart) এর জন্য অপটিমাইজ করলে কি বড় কোন performance পার্থক্য হয়?

উত্তরঃ না, তেমন পার্থক্য নাই।

১৮. আপনাদের consultancy fee কি ফিক্সড, নাকি per hour? আর সেটা কত?

উত্তরঃ সেটা কাজের উপর নির্ভর করবে। দুটোই সম্ভব।

তথ্যসহায়তাঃ বাংলাদেশ ই-কমার্স এসোশিয়েশন।

ফেসবুকের কোন অ্যাপ আপনার ডাটা চুরি করছে কিনা কিভাবে টেস্ট করবেন?

# ফেসবুকের অ্যাপগুলো কিভাবে কাজ করে?
উত্তরঃ অ্যাপ প্রথমে আপনার কাছে অনুমতি চাইবে আপনার ব্যক্তিগত তথ্য access করার। আপনি যদি অনুমতি দেন তবে সেই তথ্যগুলো নিয়ে সে কাজ শুরু করবে। অর্থাৎ যদি আপনি ইনবক্স access করার অনুমতি দেন, তবে সেই অ্যাপ আপনার চ্যাট হিস্ট্রি নিয়ে কাজ করতে পারবে।

# অ্যাপের ডেভেলপার যদি আপনার এই তথ্য গুলো স্টোর করে ফেলতে চায়, তাইলে কি সে পারবে?
উত্তরঃ হ্যা পারবে।

# তাইলে কি কি এই টাইপের অ্যাপ ব্যবহার করবোনা?
উত্তরঃ অ্যাপটি বিশ্বাসযোগ্য না হলে ব্যবহার না করাই উচিৎ!

# ডেভেলপার যে আমার তথ্য চুরি করতেছে নাকি… আমি কি বুঝতে পারবো?
উত্তরঃ সার্ভার সাইড অ্যাপ হলে পারবেন না, ইউজার সাইড অ্যাপ হলে পারবেন।

# ইউজার সাইড অ্যাপ যে আমার তথ্য চুরি করতেছে না কিভাবে বুঝবো?
উত্তরঃ ইউজার সাইড অ্যাপ যদি আপনার তথ্য চুরি করতে চায় তবে Act Of Crime (চুরি) ঐ অ্যাপের পেজ থেকেই করতে হবে। কারণ আপনার ব্যক্তিগত তথ্য ঐ পেজেই(ব্রাউজারে) লোড হয়, সার্ভারে নয়। তথ্য চুরি করতে হলে ঐ পেজ থেকেই কোন সার্ভারে আপনার তথ্য পাঠাতে হবে। ঐ পেজ থেকে কোথায় কোন তথ্য যাচ্ছে বা আসছে এটা যদি জানতে পারেন, তবে আপনি বুঝতে পারবেন তথ্য চুরির ভয় আছে কি না!

# ইউজার সাইড অ্যাপের পেজ থেকে আমার ব্যক্তিগত তথ্য (যেমনঃ চ্যাট হিস্ট্রি) কোথাও যাচ্ছে কিনা আমি কিভাবে বুঝবো?
উত্তরঃ গুগল ক্রোম বা ফায়ার ফক্স ওপেন করুন। এবার আপনাকে ব্রাউজারের কনসোল ওপেন করতে হবে। ফায়ারফক্সের জন্য CTRL+SHIFT+K চাপুন, ক্রোমের জন্য F12 চাপুন (যদি অভ্র ইন্সটল করা থাকে, বন্ধ করে নিন)। পেজের নিচে কনসোল চলে আসবে। এবার কনসোল থেকে NET সিলেক্ট করুন। এই উইন্ডোতে আপনি দেখতে পারবেন, এই ট্যাবে কোন কোন যায়গা থেকে তথ্য আসছে বা যাচ্ছে। এবার ঐ ট্যাবে অ্যাপটি ওপেন করুন ও ব্যবহার করুন। ব্যবহার করা শেষ হলে। কনসোল লক্ষ্য করুন। পেজ থেকে সকল তথ্যের আদান প্রদান ঐখানে লগ হিসেবে জমা হয়েছে।

# তারপর?
উত্তরঃ GET https://connect.facebook.net/en_US/all.js এটি হলো ফেসবুকের জাভাস্ক্রিপ্ট SDK লোড হবার লগ। এটা লোড হবার আগে তথ্য চুরি সম্ভব না। দেখুন এটির পর ফেসবুক ছাড়া অন্য কোন ডোমেইন থেকে কোন তথ্য আদান প্রদান হচ্ছে নাকি। যদি না হয়ে থাকে তবে নিশ্চিত হোন, আপনার তথ্য সুরক্ষিত আছে। (উল্লেখ্য, facebook.com ছাড়া ফেসবুকের আরো ডোমেইন আছে, যেমন প্রোফাইল পিকচার লোড করতে হলে fbcdn.net থেকে GET করতে হবে।)

টেস্ট করার পর ফলাফল দেখে তারপর এপস ব্যবহার করার পরামর্শ রইলো।

ধন্যবাদ :)

Dhrubo Host, Domain Bangladesh, Hosting Bangladesh, SSL Certificate BD

ডোমেইন, হোস্টিং, ভিপিএস এবং এসএসএল সার্টিফিকেট সেবা

ডোমেইন/ হোস্টিং সেবা ভালো পাচ্ছেন না? সার্ভার ডাউন এবং কাস্টমার সাপোর্ট নিয়ে বিরক্ত? রিনিউ করার সময় পেমেন্ট নিয়ে সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছেন? কোন প্রবলেম হলে প্রোভাইডার ফোন ধরছে না? পেমেন্ট করতে নানা অসুবিধার সম্মুখীন হতে হয়? এসব সমস্যা থেকে আপনাকে নিস্তার দিচ্ছে Dhrubo Host.

আমাদের সার্ভিস সমূহঃ
==================
ডোমেইন নেম রেজিস্ট্রেশন
শেয়ার্ড ওয়েব হোস্টিং
স্টুডেন্ট ওয়েব হোস্টিং (সল্প মূল্যে)
রিসেলার হোস্টিং
প্রিমিয়াম এসএসডি হোস্টিং
ভার্চুয়াল প্রাইভেট সার্ভার
ডেডিকেটেড সার্ভার
এসএসএল সার্টিফিকেট

ডোমেইন রেজিস্ট্রেশন সার্ভিস
==================
.BIZ ডোমেইন ৩৯০ টাকা (অফার মূল্য)
.ORG ডোমেইন ৫০০ টাকা (অফার মূল্য)
.ME ডোমেইন ৮৫০ টাকা (অফার মূল্য)
.COM ডোমেইন ৮৯০ টাকা
.NET ডোমেইন ৮৫০ টাকা
.COM.BD ডোমেইন ২৫০০ টাকা
.NET.BD ডোমেইন ২৫০০ টাকা
.ORG.BD ডোমেইন ২৫০০ টাকা
.EDU.BD ডোমেইন ২৫০০ টাকা
.AC.BD ডোমেইন ২৫০০ টাকা

বিস্তারিত জানতে / অর্ডার করতেঃ
http://dhrubohost.com/domain.html

আমাদের শেয়ার্ড ওয়েব হোস্টিং প্যাকেজ সমূহঃ

বেসিক প্যাকেজ
==============
৫০০ এমবি স্পেস
৫ গিগা ব্যান্ডউইথ
দামঃ ৭৯০ টাকা প্রতি বছর

স্ট্যান্ডার্ড প্যাকেজ
==============
১ জিবি স্পেস
১০ গিগা ব্যান্ডউইথ
দামঃ ১৫০০ টাকা প্রতি বছর

ইকোনমি প্যাকেজ
==============
২ জিবি স্পেস
২০ গিগা ব্যান্ডউইথ
দামঃ ২৪০০ টাকা প্রতি বছর

প্রফেশনাল প্যাকেজ
==============
৫ জিবি স্পেস
৫০ গিগা ব্যান্ডউইথ
দামঃ ৪০০০ টাকা প্রতি বছর
==============

যেকোন প্যাকেজের সাথে থাকছে,
– আনলিমিটেড ইমেইল + সাবডোমেইন
– আনলিমিটেড ডাটাবেস + এফটিপি

ওয়েব হোস্টিং ফিচারসমূহঃ
=====================
– ডেইলি / সাপ্তাহিক ব্যাকআপ
– সফটাকুলাস অটো ইন্সটলার
– এক্সপার্ট সাপোর্ট টিম
– লেটেস্ট সিপ্যানেল / WHM
– হোয়াইট লেবেল নেমসার্ভার
– প্রাইভেট নেমসার্ভার (রিসেলার)
– ক্লাউডলিনাক্স অপারেটিং সিস্টেম
– পিএইচপি ভার্সন সিলেক্টর
– মাইসিকুয়েল / পোস্টগ্রিএসকিউয়েল
– ২৪/৭ টিকেট / ইমেইল সাপোর্ট

বিস্তারিত জানতে / অর্ডার করতেঃ http://dhrubohost.com/web_hosting.html

ই-কমার্স / অনলাইন সিকিউরিটির জন্য SSL Certificate’s
=========================================
বাংলাদেশে সর্বনিম্ম মূল্যে SSL Certificate’s দিচ্ছে ধ্রুব হোস্ট। আপনার ই-কমার্স ওয়েসাইট / ব্যবসায়িক ওয়েবসাইটটিকে সুরক্ষিত রাখতে ব্যবহার করুন SSL Certificate (https:// Protocol). মাত্র ৬৪০ টাকা দিয়ে আপনি ধ্রুবহোস্ট থেকে পাচ্ছেন ডোমেইন ভেলিডেশন এসএসএল। এছাড়া সল্পমূল্যে গ্রীন এড্রেস বার এসএসল দিচ্ছে ধ্রুবহোস্ট।

এসএসএল সার্টিফিকেট ফিচারসমূহঃ
=========================
# আপনি পাবেন ফ্রি সাইট সীল। যা আপনার গ্রাহকদের বাড়তি আস্থা দিবে।
# সর্বনিম্ম ১০০০০ ডলার থেকে ২০০০০০ ডলার পর্যন্ত গ্যারান্টি সুবিধা।
# ভেন্ডর প্রাইছ থেকে ৭০-৮০% কম মূল্যে এসএসএল প্রাপ্তি।
# ডোমেইন ভেলিডেশন, বিসনেজ ভেলিডেশন, এক্সটেন্টেড ভেলিডেশন এবং ওয়াইল্ডকার্ড ভেলিডেশন পাবেন ধ্রুবহোস্ট থেকেই।
# Comodo, RapidSSL, Thawte, Symentec, GeoTrust পার্টনার।
# বাংলাদেশে সর্বনিম্ম মূল্যে এসএসএল প্রাপ্তি। ৬৪০ টাকা থেকে শুরু।
# হ্যাকার প্রোটেকশন সিকিউরিট।

বিস্তারিত জানতে / অর্ডার করতেঃ http://dhrubohost.com/

দেখুন আমাদের গ্রাহক’রা আমাদের সম্পর্কে কি বলছেনঃ
=====================================

http://on.fb.me/1s43UUn

http://on.fb.me/1wHIyTv

http://on.fb.me/1wHIzGY

http://on.fb.me/1s44jWJ

http://on.fb.me/1zxb2wZ

# অন্যান্য রিভিউ চেক করতে ভিসিট করুন https://www.facebook.com/DhruboHost/reviews

# আমাদের সাথে কথা বলতে ওয়েবসাইট থেকে লাইভ চ্যাটে নক করতে পারেন / সোশ্যাল মিডিয়াতে মেসেজ করতে পারেন। ইমেইল করতে পারেন। স্কাইপেও মিটিং এর জন্য এপয়েন্টমেন্ট করতে পারেন।

# ওয়েব হোস্টিং এ আপনি পাবেন ৩০ দিনের মানিব্যাক গ্যারান্টি। যেকোন যুক্তিসঙ্গত কারন দেখিয়ে আমাদের ইমেইল করলেই আপনি ৭ দিনের মধ্যে মানিব্যাক পাবেন।

# আমাদের রেইড-১০ সার্ভার এবং আপনি পাবেন ৯৯.৯৯% আপটাইম। যেকোন সমস্যায় পাবেন ফ্রেন্ডলি সাপোর্ট।

# আমাদের আছে মাল্টি পেমেন্ট মেথড। সার্ভিস অর্ডার করার পর যেকোন ডেবিট / ক্রেডিট কার্ড / ভিসা কার্ড / বিকাশ / পেপাল / অনলাইন ব্যাংকিং ব্যবহার করেও আমাদের পেমেন্ট করতে পারবেন।

আমাদের কিছু সন্মানিত গ্রাহকঃ
=====================
Rajshahi University, Shafiqul Islam Shimul (Member of Parliament), HR Residential Model School & College, Trip to Bangladesh, Craftic Arts, SR Traders, Hasna Hena Picnic Spot, SuperSoft Corp. , AmarDroid, AnnoRakom News & Research, Extended Platform, Support Bangladesh, Al Faruq Academy, Rahil’s Media, Barisal View, Daily Milk, Delmon Motors, ESD BD, GDM Wear LTD, Life Group LTD, Noakhali Mail, Taiyeba Fashion LTD.

Thank you, Have any Questions?
———————————————-
Contact : 01795 470 074
Email : sales@dhrubohost.com
Web : www.dhrubohost.com
Skype : dhrubohost // Website Live Chat
Facebook : http://fb.com/DhruboHost
Twitter : http://twitter.com/DhruboHost

ডোমেইন অথবা হোস্টিং কেনার আগে যে সব বিষয় ভেবে দেখবেন

অনেকেই ব্যক্তিগত ওয়েব সাইট অথবা প্রতিষ্ঠানের জন্য ওয়েব সাইট বানাতে চান। এজন্য প্রথমেই দরকার একটি ডোমেইন নেম। তারপর ডোমেইনটি হোস্ট করার জন্য হোস্টিং স্পেস। পৃথিবীতে হাজার হাজার কোম্পানি আছে ডোমেইন এবং হোস্টিং সেবা প্রদানের জন্য। কিন্তু সবগুলোই ভাল সার্ভিস প্রদান করে না। অনেকেই আছেন যারা হুট করে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনে ফেলেন। পরে এটি থেকে নিজের মনের মতো সুবিধা না পেলে দুঃখ প্রকাশ করা ছাড়া কিছু করার থাকে না। তাই যে সব বিষয় সম্পর্কে অবগত না হয়ে ডোমেইন এবং হোস্টিং কেনা উচিত না বলে আমি মনে করছি তা আগেই জেনে নিন।

ডোমেইন কেনার আগে যা ভাববেন-

১. ডোমেইন নেম কেমন হবে-

মানুষ ডোমেইন মানেই ডট কমকে মনে করে থাকে। তাই সব সময় ডট কমকেই প্রাধান্য দিতে হবে।
সহজে মনে রাখা এমন হতে হবে।
যেন সহজে বানান করা যায় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।
যেন শ্রুতিমধুর হয়, উদ্ভদ কোনো ডোমেইন পছন্দ করে পাঠকে ভড়কে দেবার প্রয়োজন নেই।
ডোমেইন যথা সাধ্য ছোট রাখার চেষ্টা করতে হবে।
যেন অন্য কোনো প্রতিষ্টিত ওয়েবসাইটের নামের সাথে গুলিয়ে না যায় সে দিকে খেয়াল রাখতে হবে।

২. ডোমেইন রেজিস্ট্রার পছন্দ করবেন যেভাবে-

যেহেতু বাংলাদেশে পেপাল ও ক্রেডিট কার্ড এর সুবিধা নাই, সেহেতু বাংলাদেশি ডোমেইন রেজিস্ট্রার থেকেই কিনতে হবে।ডোমেইন কেনার আগে কয়েকটা রেজিস্ট্রারের তালিকা তৈরি করুন। তারপর তাদের সাথে যোগাযোগ করুন।
**** সবাইকে জিজ্ঞাসা করুন ডোমেইনের ফুল কন্ট্রোল প্রদান করে কি না। ফুল কন্ট্রোল ছাড়া ডোমেইন কিনবেন না।
ডোমেইনের দামের ব্যাপারে চিন্তা করুন। অনেকেই ২০০-৪০০ টাকায় ডোমেইন অফার করে থাকে। এদের পরিহার করুন। কারন ICANN ডোমেইন নেম নিয়ন্ত্রণকারী প্রতিষ্ঠান। তাদের ফি ১৮ সেন্ট আর .com এবং .net verisign এর মাধ্যমে রেজি করতে হয়। তাদের প্রাইস ৫০০-৬০০ টাকার উপরে। তাই বাংলাদেশি রিসেলাররা কিভাবে এই টাকায় দিবে চিন্তা করুন।
*** কমদামে ডোমেইন কিনে পরে প্রতারিত হওয়ার সম্ভবনা বেশি। যেমন- রিনিউ করার সময় আপনার কাছ থেকে বেশি টাকা দাবী করা হতে পারে। অথবা সাইট জনপ্রিয় হলে ডোমেইনটি হাইজেক করা হতে পারে।

হোস্টিং কেনার আগে যা ভাববেন-

ডোমেইন পছন্দ করা এবং কেনা শেষে ডোমেইনটা হোস্ট করতে হবে। হোস্টিং ছাড়া ডোমেইন দিয়ে কোন কাজ হবে না। তাই হোস্টিং প্রোভাইডার নির্বাচন করার আগে কি কি বিষয় ভেবে দেখতে হবে তা জেনে নেই।

১. প্রত্যেকেরই একটা আনুমানিক বাজেট থাকে যার মধ্যে সে হোস্টিং কিনবে। একই সাথে ভাল মানের এবং কম টাকার মধ্যে কিনতে হলে অবশ্যই আপনাকে বাজার ঘুরে দেখতে হবে। আপনার বাজেট নির্ধারণ অবশ্যই বাস্তব সম্মত হতে হবে।একটা কথা মনে রাখতে হবে যেমন টাকা পে করবেন তেমন সার্ভিস পাবেন। আপনি যেমন ডিমের দামে মুরগী পাবেন না তেমনি হোস্টিং এর ক্ষেত্রেও তা প্রযোজ্য। একটা ডেডিকেটেড সার্ভারের প্রাইস ১৫০-৫০০ ডলার প্রতি মাসে এখন আপনি যদি ৫০ জিবি স্পেস ২ ডলার মাসে চান তাহলে আপনাকে ডাউনটাইম, সাইট স্লো লোডিং এসব বিষয় সহ্য করতে হবে। তাই কেনার আগে এ বিষয়টি ভেবে দেখুন। সস্তার তিন অবস্থা এই কথাটি মাথায় রাখুন।

২. আপনাকে ডিস্ক স্পেস এর কথা চিন্তা করতে হবে। আপনার ওয়েব সাইটের জন্য কতটুকু স্পেস লাগবে তা হিসাব করে নিন। আপনি যদি ব্যক্তিগত ওয়েব সাইট করতে চান যাতে শুধু কয়েকটা পেজ থাকবে তাহলে ৫০ এমবি স্পেসই যথেষ্ট। আর যদি চিন্তা ব্যক্তিগত ব্লগ টাইপের ওয়েব সাইট হবে তাহলে ২০০-৫০০ এমবি স্পেসই যথেষ্ট। আর আপনি যদি চিন্তা করেন ছবি, গান, ভিডিও রাখবেনতবে আপনাকে বড় ওয়েব স্পেসের দিকে নজর দিতে হবে।

আনলিমিটেড স্পেসের ফাঁদে পা দিবেন না। এটা একটা মার্কেটিং ট্রিকস। কোন কোম্পানিরই আনলিমিটেড স্পেস দেয়া সম্ভব না। একবার চিন্তা করুন তো আপনি মার্কেটে আনলিমিটেড হার্ডডিস্ক দেখেছেন কি না। সার্ভারও আমাদের পিসির মতোই।

৩. প্রতিবার পাঠক / দর্শক যতগুলো পেজ আপনার ওয়েবসাইট ভিজিট করে, ততগুলো পেজ, ছবি, গান, ভিডিও অর্থাৎ ওইসব পেজে যা কিছু আছে সবগুলোই পাঠকের কম্পিউটারে ডাউনলোড হয়। প্রাথমিক অবস্থায় একটা সাইটের ১ জিবি ব্যান্ডউইথ ও যথেষ্ট। পারসোনাল সাইটের জন্য এর চেয়ে বেশি লাগার কথা না। আর আপনার সাইটে যদি প্রচুর ইমেজ, ভিডিও ইত্যাদি থাকে তাহলে প্রচুর ব্যান্ডউইথ লাগতে পারে। ১০-১০০ জিবি অথবা তারচেয়ে ও বেশি।

৪. একটি ওয়েবসাইটের জন্য আপটাইম বিষয়টি খুবই জরুরি। হোস্টের সার্ভার যতক্ষন সচল থাকবে, আপনার ওয়েবসাইটও ততক্ষন সক্রিয় থাকবে। এটা কেবলমাত্র পাঠকের জন্যই গুরুত্বর্পূণ নয়, বরং সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনেও অনেক গুরুত্ব বহন করে। পাঠক একবার আপনার ওয়েবসাইটে আসে দেখলো আপনার ওয়েবসাইট কাজ করছে না, তখন তার মনে বিরূপ প্রতিক্রিয়া হবে এবং সে ভবিষ্যতে নাও আসতে পারে। ঠিক তেমনি সার্চ ইঞ্জিনের বট ইনডেক্সের সময় ওয়েবসাইট ডাউন থাকলে, সে ফিরে যাবে এবং আপনি আপনার ওয়েবসাইট ইনডেক্স হওয়া থেকে বঞ্চিত হবেন।এখন প্রতিটি হোস্টিং কোম্পানিই ৯৯.৯% টাইম সক্রিয় থাকার প্রতিশ্রুতি দেয়। আর কোম্পানি যদি কোন মাসে আপটাইম গ্যারান্টি রক্ষা না করতে পারে তাহলে সে জন্য ক্রেডিট প্রদান করে কি না চেক করে নিতে হবে। কোম্পানির ওয়েব সাইটে টার্মস অব সার্ভিসেস লিংকে এ সম্পর্কিত বিস্তারিত লেখা থাকে।

৫. মানিব্যাক গ্যারান্টি অত্যন্ত গুরুত্বপুর্ণ বিষয়। অনেক কোম্পানিই ৩০ দিনের মানিব্যাক গ্যারান্টি দিয়ে থাকে। কেনার আগে নিশ্চিত হয়ে নিন কোম্পানি মানিব্যাক গ্যারান্টি দিচ্ছে কিনা।

৬. প্রতিষ্টানের সোশ্যাল রিভিউ চেক করে নিন। দেখুন অন্যরা তার প্রতিষ্টানের সার্ভিসে খুশি কি না। খারাপ রিভিউ পেলে সেই কোম্পানী এরিয়ে চলুন।

৭. সাপোর্ট একটা গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আপনার সার্ভার যদি কখনো ডাউন হয় আর যদি তা জানাতে এবং উত্তর পেতে কয়েক দিন লেগে যায় তাহলে লক্ষ ভিজিটর হারাতে পারেন। আর যদি আপনি রিসেলার ক্লাইন্ট হোন তবে তো মহা বিপদে পড়বেন। আপনার ক্লাইন্টকে কোন উত্তর দেয়ার মতো কিছু থাকবে না। তাই কোম্পানির সাপোর্ট কত দ্রুত তা নিশ্চিত হয়ে নিন।

৮. হোস্টিং প্লানগুলোর মধ্যে কোন লিমিটেশন থাকলে সেটা অনেক সময় ভালভাবে উল্লেখ করা থাকে না। তাই প্লানগুলোর তুলনা করে আপনার চাহিদার সাথে বেপারগুলো মিলে কিনা তা দেখে নিন। আপনি যদি এএসপি ডট নেটে সাইট বানাতে চান তাহলে আপনার উন্ডডোজ হোস্টিং লাগবে। লিনাক্স হোস্টিং এ চলবে না। আপনার যে যে ফিচার প্রয়োজন তা তারা দিতে পারছে কি না দেখে নিন।

৯. আপনি আপনার হোস্টিং এ কি কি হোস্ট করতে পারবেন এবং কতটুকু স্পেস, ব্যান্ডউইথ, সিপিউ ব্যবহার করতে পারবেন তা টার্মস অব সার্ভিসেস পেজে দেয়া থাকে। তাই কোম্পানির টার্মস অব সার্ভিসেস পড়ে নিতে হবে।

১০. আপনার ওয়েব সাইট ম্যানেজ করার জন্য কন্ট্রোল প্যানেল প্রয়োজন। কন্ট্রোল প্যানেলের সাহায্যে আপনি আপনার ওয়েব সাইট সহজেই ম্যানেজ করতে পারেন। ওয়েব হোস্টিং এ সব চেয়ে সহজ এবং অধিক ফিচার সমৃদ্ধ কন্ট্রোল প্যানেল হচ্ছে সিপ্যানেল। তাই সবসময় সিপ্যানেল হোস্টিং নেয়ার কথা চিন্তা করুন।

১১. সার্ভার ওভার লোড কিনা তা নিশ্চিত হয়ে নিন। আপনি হোস্টিং কোম্পানিকে সার্ভারের টোটাল কোর এবং প্রসেসর সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করুন। যদি সার্ভার কোর ৮টা হয় এবং তাদের সার্ভার লোড ৮ এর উপরে হয় তাহলে সার্ভার ওভারলোড। এবং ওভারলোড সার্ভারে সাইট হোস্ট করলে সাইট লোড হতে বেশি সময় নিবে।

এসব বিষয় খেয়াল রেখে ডোমেইন এবং হোস্টিং কিনলে আশাকরি ভাল মানের হোস্টিং কিনতে পারবেন।

ধন্যবাদ।

Dhrubo Host অক্টোবর প্রোমোশন

অতপরঃ বায়ার এবং সেলার

যেই কাজ ই করেন, যত কম পেমেন্ট হোক আর যত বেশি পেমেন্ট ই হোক, কাজে অনেক যত্নশীল হতে হয়। যদি কম পেমেন্টে যত্নশীল হতে না পারেন তবে প্রোজেক্ট ই নেয়ার দরকার নাই। কাজটাকে আপন মনে না করলে জীবনে আপনার দ্বারা ভালো কোন কাজ বের হবে না। সেটা ক্লাইন্টের কাজ হোক আর আপনার নিজের কাজ হোক।

কাজ একটু খারাপ হলেও যদি বায়ার দেখে আপনি চেষ্টা করেছেন, তার কাজটাকে নিজের কাজ মনে করে খেটেছেন, তবে কাঙ্ক্ষিত ফলাফল অর্জন সম্ভব না হলেও আপনি একজন ভালো সেলার হিসেবে থাকবেন তার কাছে আজীবন। নচেৎ প্রত্যেকের কাছেই আপনি খারাপ হয়ে যাবেন ধীরে ধীরে। ক্যারিয়ার ধংস্বের মুখে চলে যাবে আর আপনি দুষবেন মার্কেটপ্লেস কে।

গত ২০১০-২০১৩ পর্যন্ত ছিলাম সেলার। আর এই বছরের এখন পর্যন্ত পুরোটাই আমি বায়ার। দুটো জগৎ ই খুব ভালো মতো দেখা হলো। এই অভিজ্ঞতা সারাটা জীবন কাজে লাগবে। জীবনে যদি আবার কখনো সেলার হই তবে আগের আমি আর ভবিষতের সেলার আমির মধ্যে থাকবে বিস্তর তফাৎ।